হাত বাড়ালেই মেঘ ছোঁয়া যায় যেখানে

সকালে ঘুম ভাঙল কটেজের ব্যালকনি দিয়ে আসা ঠান্ডা হিমেল হাওয়ায়। ঘুম থেকে উঠে ব্যালকনিতে গিয়ে নিজের চোখকে বিশ্বাস হচ্ছিল না। লেকের ওপর দিয়ে সাদা সাদা মেঘ ভেসে যাচ্ছে। দেখে মনে হচ্ছিল, তাদের মাঝে হারিয়ে যাই। লেকে হাত-মুখ ধুয়ে ফ্রেশ হওয়ার পর শুরু হলো নাস্তার পালা।

শিমুল ভাইকে বললাম, ‘ভাই সকালের আইটেম কী আজ?’ ভাই বললেন, ‘মুনথাং দা সিয়াম দিদির দোকানে খিচুড়ির আয়োজন করেছেন।’ মনে মনে বললাম, ‘মেঘ না চাইতেই বৃষ্টি।’ এমন ঠান্ডা আবহাওয়ায় খিচুড়ি হলে মন্দ হয় না। সিয়াম দিদির হাতের রান্না অসাধারণ।

সিয়াম দিদির সাথে আপনাদের একটু পরিচয় করিয়ে দিতে চাই। ভ্রমণপিপাসুদের কাছে এখানকার পরিচিত নাম হলো লাল এং সিয়াম বম। সবাই ‘সিয়াম দিদি’ নামেই চেনে তাকে। আলাপকালে আমি জানতে পেরেছি, ২০০৪ সালের দিকে তিনিই প্রথম কটেজ নির্মাণ করেন। এখন এখানে তার ছয়টি কটেজ। মূলত মাটি থেকে উপরে মাচাং করে বানানো ঘরটিকে এখানে ‘কটেজ’ বলা হয়। তিনি নিজে একটি দোকান চালান। পর্যটকরা তার কটেজে থাকার পাশাপাশি পাবেন খাবারের সুবিধাও। আমরা তার কটেজেই উঠেছিলাম। গতকাল দুপুরে ও আজকের সকালে তার দোকান থেকেই খেয়েছিলাম। সে কী স্বাদ খিচুড়ির। খিচুড়ির সাথে আলু ভর্তা, ডিম ভাজি, বেগুন ভাজিও ছিল।

খিচুড়ি খাওয়া শেষ করে আর্মি ক্যাম্প থেকে অনুমতি নিয়ে শুরু হলো হেঁটে কেওক্রাডং যাত্রা। গাইড আমাদের বলেছিলেন, ‘বহনের ব্যাগ যত হালকা হবে; তত তাড়াতাড়ি কেওক্রাডং যাওয়া যাবে।’ আমরা তিন বন্ধুর ৩টা ব্যাগকে দুইটা করে নিয়েছিলাম। যে যতটা পারলো ব্যাগ হালকা করে নিলো। বাকি ব্যাগগুলো সিয়াম দিদির দোকানেই রেখে গেলাম। আমরা বগা লেক থেকে ১১ জন ১১টি লাঠি নিয়ে নিলাম সাথে। লাঠি পাহাড়ের উপরের দিকে ওঠাকে অনেক সহজ করে দেয়।

About bro01 bro01

Check Also

ডায়াবেটিস থেকে আজীবন মুক্ত থাকার ৯টি প্রমাণিত উপায়

আমাদের নিত্য ব্যবহার্য শব্দগুলোর মধ্যে এখন ডায়াবেটিস(Diabetes) শব্দটি বেশ কমন হয়ে পড়েছে। কেননা ডায়াবেটিস যেন …

댓글 남기기

이메일은 공개되지 않습니다. 필수 입력창은 * 로 표시되어 있습니다